বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ সাল ও ঘটনাপঞ্জি

0

বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ সাল ও ঘটনাপঞ্জি

১৮০০ সাল- উইলিয়াম কেরি কর্তৃক মিশনারী কাজের সাথে প্রাথমিক শিক্ষা কার্যক্রম শুরু
১৮১৩ সাল- সনদ আইন গ্রহণ যার মাধ্যমে মেকলে বৈষম্যমূলক শিক্ষানীতি অনুসরণ করেন
১৮৩৫ সাল- উলিয়াম এ্যডাম কর্তৃক (১৮৩৫-৩৮) এ অঞ্চলের প্রাথমিক শিক্ষা সম্পর্কে অনুসন্ধান ও প্রতিবেদন প্রকাশ
১৮৪০ সাল- প্রসন্ন কুমার ঠাকুর, দ্বারকানাথ ঠাকুর, ডেভিড হেয়ার, রামকমল সেন প্রমুখ এর বাংলাভাষায় প্রাথমিক শিক্ষাদানের জন্য পাঠশালা স্থাপনের উদ্যোগ গ্রহণ
১৮৫৪ সাল- উডের ডেসপ্যাচ বা শিক্ষা প্রস্তাব প্রদান
১৮৮৩ সাল- উইলিয়াম হান্টার এর নেতৃত্বে প্রথম ইন্ডিয়ান শিক্ষা কমিশনের প্রতিবেদন প্রকাশ
১৯১০ সাল- গোপালকৃষ্ণ গোখলে কর্তৃক অবৈতনিক ও আবশ্যিক প্রাথমিক শিক্ষা প্রবর্তনের জন্য কর আরোপের প্রস্তাব আইন পরিষদে পেশ
১৯১৯ সাল- শিক্ষা সংস্কারের আওতায় বাধ্যতামূলক প্রাথমিক শিক্ষা আইন পাশ।
১৯২৯ সাল- হার্টগ কমিটি’র প্রতিবেদনে প্রদন
১৯৩০ সাল- বঙ্গীয় পল্লী প্রাথমিক শিক্ষা আইন পাশ
১৯৪৪ সাল- সার্জেন্ট কমিশনের প্রতিবেদন প্রকাশ
১৯৪৭ সাল- ২৭ নভেম্বর থেকে পাঁচদিন ব্যাপী পাকিস্তানে প্রথম শিক্ষা সম্মেলন
১৯৫০ সাল- জেলা স্কুল বোর্ড বিলুপ্তি ঘোষণা
১৯৫২ সাল- ‘পূর্ববঙ্গ শিক্ষা ব্যবস্থা পুনর্গঠন’ কমিটির প্রতিবেদন প্রকাশ
১৯৫৪ সাল- নির্বাচনের প্রাক্কালে যুক্তফ্রন্টের একুশ দফা কর্মসূচিতে প্রাথমিক শিক্ষাকে সর্বজনীন, অবৈতনিক ও বাধ্যতামূলক করার কথা উল্লেখ
১৯৫৭ সাল- ৫০০০ কম্পালসরি বিদ্যালয় সমূহকে মডেল এবং বাকী প্রাথমিক বিদ্যালয়কে নন-মডেল নামকরণ
১৯৫৯ সাল- আতাউর রহমান খানের নেতৃত্বে গঠিত পূর্ব পাকিস্তানে প্রথম শিক্ষা কমিশনের প্রতিবেদন প্রকাশ
১৯৬৫ সাল- সকল প্রাথমিক বিদ্যালয় একীভূত করে ‘ম্যানেজড ফ্রি প্রাইমারি স্কুল’ হিসাবে ঘোষণা
১৯৭১ সাল- নয় মাস মুক্তি সংগ্রামের মাধ্যমে বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জন
১৯৭২ সাল- ২৪ সেপ্টেম্বর প্রখ্যাত বিজ্ঞানী ও শিক্ষাবিদ ড. কুদরাত এ খুদার নেতৃত্বে ‘বাংলাদেশ শিক্ষা কমিশন’ গঠন
১৯৭৩ সাল- বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ঘোষণার মাধ্যমে দেশের প্রাথমিক শিক্ষাকে সম্পূর্ণভাবে জাতীয়করণ
১৯৭৪ সাল- ৩০ মে ‘বাংলাদেশ শিক্ষা কমিশন’ এর চূড়ান্ত রিপোর্ট প্রকাশ
১৯৭৬ সাল- প্রাথমিক স্তরের শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যসূচি প্রণয়ন
১৯৭৮ সাল- মৌলিক শিক্ষা একাডেমির যাত্রা শুরু
১৯৭৯ সাল- ৮ ফেব্রচ্ছারি ‘জাতীয় শিক্ষা উপদেষ্টা কমিটি’ অন্তর্বর্তীকালীন শিক্ষানীতি সুপারিশ শিরোনামে রিপোর্ট পেশ
১৯৮১ সাল- শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীন স্বতন্ত্র পরিদপ্তর স্থাপন
১৯৮৩ সাল- মজিদ খান শিক্ষা কমিশন গঠন
১৯৮৫ সাল- জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা একাডেমী (নেপ) নামে কার্যক্রম পরিচালন
১৯৮৭ সাল- মফিজ উদ্দীন আহমদকে প্রধান করে ‘বাংলাদেশ জাতীয় শিক্ষা কমিশন’ নিয়োগ
১৯৮৮ সাল- আবশ্যকীয় শিখনক্রম প্রণয়ন
১৯৯০ সাল- প্রাথমিক শিক্ষাকে আইনের মাধ্যমে বাধ্যতামূলক ঘোষণা ৫ থেকে ৯ মার্চ থাইল্যান্ডের জমতিয়েন শহরে আন্তর্জাতিক সম্মেলন
১৯৯১ সাল- যোগ্যতাভিত্তিক শিখনক্রম অনুসরণ আরম্ভ
১৯৯২ সাল- সাধারণ শিক্ষা প্রকল্পের কার্যক্রম শুরু
১৯৯২ সাল- শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীন পৃথক প্রাথমিক ও গণশিক্ষা বিভাগ সৃষ্টি সাধারণ শিক্ষা প্রকল্প কার্যক্রম শুরু
১৯৯৩ সাল- সারাদেশে বাধ্যতামূলক প্রাথমিক শিক্ষা চালু
১৯৯৩ সাল- শিক্ষার জন্য খাদ্য কর্মসূচি চালু
১৯৯৬ সাল- আইডিয়াল প্রকল্পের কার্যক্রম শুরু
১৯৯৭ সাল- অধ্যাপক এম শামসুল হকের নেতৃত্বে শিক্ষা কমিশন গঠন
১৯৯৭ সাল- নোরাড প্রকল্পের কার্যক্রম শুরু এবং জার্মান সাহায্যপুষ্ট জিটিজেড প্রাথমিক শিক্ষা প্রকল্পে কার্যক্রম শুরু
১৯৯৭ সাল- পিইডিপি কার্যক্রম শুরু
১৯৯৮ সাল- ডিএফআইডি সাহায্যপুষ্ট এস্টিম প্রকল্পের কার্যক্রম শুরু
২০০০ সাল- ডাকার সম্মেলন
২০০১ সাল- বাস্তবায়নযোগ্য শিক্ষা সংস্কার চিহ্নিত করতে ড. এম এ বারীর নেতৃত্বে একটি বিশেষজ্ঞ কমিটি গঠন
২০০৩ সাল- অধ্যাপক মনিরুজ্জামান মিয়া’র নেতৃত্বে বাংলাদেশ শিক্ষা কমিশন গঠন
২০০৩ সাল- পৃথক ও স্বয়ংসম্পূর্ণ প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় গঠন এবং দ্বিতীয় প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচি গ্রহণ
২০০৯ সাল- অধ্যাপক কবির চৌধুরীর নেতৃত্বে ১৬ সদস্যের শিক্ষা কমিশন গঠন
২০১০ সাল- ‘জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০’ প্রণয়ন
২০১১ সাল- তৃতীয় প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচি গ্রহণ
২০১৩ সাল- তালিকাভুক্ত সকল রেজির্স্টাড বেসরকারি, বেসরকারি ও কমিউনিটি প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণের ঘোষণা
২০১৪ সাল- প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের পদ উন্নীতকরণ এবং সহকারী শিক্ষকদের বেতনস্কেল উন্নীতকরণ

Share.

About Author

Leave A Reply